তিনটি প্রদক্ষেপ আপনার সমস্যার সমাধান ইনশাআল্লাহ্


দুয়া করার সময় আরো মনে রাখতে হবে আল্লাহ্‌র নিষিদ্ধ কোন বিষয়ে দুয়া করা যাবে না। আপনি যেই কাজটি করতে চাচ্ছেন সেটা কি আল্লাহ্‌র পক্ষ হতে হালাল বা জায়েজ কাজ ? নাকি হারাম বা গুনাহের কাজ। এমন দুআ করা যাবেনা যে আল্লাহ্‌ আমি চুরি করবো কিন্তু আপনি সাহায্য করুন। অথবা আল্লাহ্‌ আমি অমুক মেয়েকে ধর্ষণ করবো তাই আপনি সাহায্য করুন অথবা অমুক ব্যক্তিকে হত্যা করবো সাহায্য করুন।

মনে রাখবেন আল্লাহ্‌ অন্তরের খবর ভালো জানেন। আপনার পাপ কাজে আপনাকে আল্লাহ্‌ সাহায্য করবেন না। কারন আল্লাহ্‌ অত্যাচারী, জুলুমকারী, পাপি, সয়তানকে সাহায্য করেন না। আল্লাহ্‌ তাকেই সাহায্য করে যে আল্লাহ্‌কে ভয় করে এবং নিজের ক্ষতি বা লস হলেও আল্লাহ্‌র ভয়ে যেকোনো কাজ করে থাকে বা বর্জন করে।

মহান আল্লাহ্‌ বলেন ... ‘‘হে মুমিনগণ! তোমরা একে অপরের সম্পত্তি অন্যায়ভাবে গ্রাস করোনা। কিন্তু তোমাদের পরস্পর রাযি হয়ে ব্যবসা করা বৈধ; এবং একে অপরকে হত্যা করিওনা; নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাদের প্রতি পরম দয়ালু। আর যে কেউ সীমালংঘন করে অন্যায়ভাবে তা করবে, তাকে আমি অগ্নিতে দগ্ধ করব, আর এটা করা আল্লাহর পক্ষে সহজ।’’(সূরা নিসা:২৯)

‘‘তোমরা নিজেদের মধ্যে একে অপরের সম্পদ অবৈধ পন্থায় গ্রাস করো না এবং মানুষের ধন-সম্পত্তির কিয়দাংশ জেনে শুনে অন্যায়ভাবে গ্রাস করার উদ্দেশ্যে তা বিচারকগণের নিকট পেশ করো না।''(আল-বাকারাহ্: ১৮৮)

তাই কিসের জন্য দুয়া করছেন এর আগে চিন্তা করুন আপনি যা চাচ্ছেন সেটা আপনার জন্য হালাল বা বৈধ কিনা। আপনি কারো উপর জুলুম করে দুয়া করতে পারেন না, আপনি কারো মাল সম্পদ ভক্ষন করার জন্য দুয়া করতে পারেন না, আপনি হারাম খাওয়ার জন্য দুয়া করতে পারেন না, আপনি অপরের ক্ষতি করার জন্য দুয়া করতে পারেন না। এমন হলে আল্লাহ্‌ অবশ্যই অত্যাচারী জুলুমকারিকে হেদায়েত দেন না এবং সাহায্য করেন না। এবং দুয়া কবুলের জন্য হালাল রুজি জরুরী। আপনি হারাম চাকুরি, ব্যবসা, কাজ করে টাকা উপার্জন করলে সেই খাবার খেয়ে দুয়া করলে কবুল হবে না।

‘‘রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট একদা এ আয়াতটি তেলাওয়াত করা হল। ‘‘হে মানবমন্ডলী ! পৃথিরীর হালাল ও পবিত্র বস্ত্ত-সামগ্রী ভক্ষন কর।’’ তখন সাদ ইবন আবি ওয়াক্কাস রাদিয়াল্লাহু আনহু দাঁড়িয়ে বললেনঃ হে আল্লাহর রাসূল! আল্লহর কাছে দু’আ করুন যেন আমার দু’আ কবুল হয়। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ হে সা‘দ, তোমার পানাহারকে হালাল কর, তবে তোমার দু’আ কবুল হবে।’’ (ইমাম তাবারানী, মু‘জামুল আওসাত, খ. ৬, পৃ. ৩১০)

কাব ইবন উজরাহ রা. রাসূলে কারীম সা. থেকে বর্ণনা করেন:
‘‘যে শরীর হারাম পেয়ে হরষ্ট পুষ্ট হয়েছে, তা জান্নাতে যাবে না।’’(মুসনাদ আবী ইয়া‘লা, খ.১ পৃ. ৮৪)
সমাপ্ত

আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক ইন শা আল্লাহ ’ লেখাটি শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে!

Post a comment

0 Comments