প্রশ্নঃ শিশু সন্তান মারা গেলে তারা কি ক্বিয়ামতের দিন পিতা-মাতার জন্য সুফারিশ করবে?


প্রশ্নঃ শিশু সন্তান মারা গেলে তারা কি ক্বিয়ামতের দিন পিতা-মাতার জন্য সুফারিশ করবে?

উত্তরঃ শিশু অবস্থায় কোন ছেলে-মেয়ে মারা গেলে তারা ক্বিয়ামতের দিন তাদের মুসলিম পিতা-মাতাকে জান্নাতে নিয়ে যাবে। আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে বলতে শুনেছি যে, মুসলিম শিশু সন্তানেরা জান্নাতের ‘শিশু খাদেম’ হবে। তাদের কেউ পিতা-মাতা কাউকে পেলে তার কাপড় ধরে টেনে জান্নাতে না নেওয়া পর্যন্ত ছাড়বে না’। (মুসলিম, মিশকাত হা/১৭৫২)

অবশ্য যদি আল্লাহ তাদেরকে সুফারিশের অনুমতি দেন, তাহ’লেই কেবল সেটা সম্ভব হবে’। (বাক্বারাহ ২/২৫৫)

সন্তানের বয়স গর্ভে যদি ১২০ দিন হয় তবে তা শিশু বলে গন্য হবে

**মৃত ছোট সন্তান পিতা-মাতার নাজাতের মাধ্যম হবে, যদি সবর করা হয়।

হযরত আবু হোরায়রা (রা) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, "মুসলমানদের ছোট ছোট বাচ্চারা জান্নাতের সহায়ক হবে। তারা আপন পিতাকে কাপড়ের পাশ ধরে টানতে থাকবে, ততক্ষণ থামবে না, পৃথক হবে না যতক্ষণ না (পিতাকে) জান্নাতে নিয়ে পৌছায়।" [মুসনাদ এ আহমদ ও মিশকাত; হাদিস নং ১৬৫৫]

হযরত মুয়ায বিন জাবাল (রা.) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন-
"যে মুসলমানের ৩টি সন্তান মারা যাবে, আল্লাহ তাকে নিজ অনুগ্রহ ও রহমতে জান্নাত দেবেন।"

সাহাবীগন প্রশ্ন করলেন,
"ইয়া রাসূলুল্লাহ (সা.) যদি ২টি সন্তান মারা যায়?"

রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন,
"২টি সন্তান মারা গেলেও।"

সাহাবীগন প্রশ্ন করলেন,
"ইয়া রাসূলুল্লাহ (সা.) যদি ১টি সন্তান মারা যায়??"

রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন,
"১টি সন্তান মারা গেলেও।"

"কসম আল্লাহর!! মৃত প্রসব করা সন্তান-ও তাঁর নিজ মা কে নিজের নাভী-লতা (যা দ্বারা বাচ্চা পেটের ভিতর থাকাকালীন খাদ্য-শ্বাস গ্রহণ করে) দ্বারা জান্নাতের দিকে টেনে টেনে নিয়ে যাবে; যদি সে ধৈর্য্য ধরে ও প্রতিদানের আশা করে।" [মুসনাদ এ আহমদ ও মিশকাত; হাদিস নং ১৬৫৭]
সমাপ্ত

লেখাঃ আব্দুল্লাহিল হাদি বিন আব্দুল জলিল (আল্লাহ্‌ তাকে উত্তম প্রতিদান দান করুন!)

আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক ইন শা আল্লাহ ’ লেখাটি শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে!

Post a comment

0 Comments