কুরআনুল কারীমে বর্ণিত মানুষের পরিচয়

কুরআনুল কারীমে বর্ণিত মানুষের পরিচয়

আল্লাহ তাআ’লা মানুষের পরিচয় বর্ণনা করে কুরআনুল কারীমে বলেছেনঃ

(১)  আল্লাহ তোমাদের বোঝা হালকা করতে চান। মানুষ দুর্বল সৃজিত হয়েছে। [সুরা নিসা ৪:২৮]

(২)  মানুষ তো সৃজিত হয়েছে ভীরুরূপে। [সুরা মা’য়ারিজ ৭০:১৯]

যখন তাকে অনিষ্ট স্পর্শ করে, তখন সে হা-হুতাশ করে। [সুরা মা’য়ারিজ ৭০:২০]

আর যখন কল্যাণপ্রাপ্ত হয়, তখন কৃপণ হয়ে যায়। [সুরা মা’য়ারিজ ৭০:২১]

তবে তারা স্বতন্ত্র, যারা নামায আদায় কারী। [সুরা মা’য়ারিজ ৭০:২২]

(৩) নিশ্চয় আমি এ কোরআনে মানুষকে নানাভাবে বিভিন্ন উপমার দ্বারা আমার বাণী বুঝিয়েছি। মানুষ সব বস্তু থেকে অধিক তর্কপ্রিয়। [সুরা কা’হফ ১৮:৫৪]

(৪) নিশ্চয় আমি মানুষকে শ্রমনির্ভররূপে সৃষ্টি করেছি। [সুরা বা’লাদ ৯০:৪]

(৫) হে মানুষ, তোমাকে তোমরা পালনকর্তা পর্যন্ত পৌছতে কষ্ট স্বীকার করতে হবে, অতঃপর তার সাক্ষাৎ ঘটবে। [সুরা ইনশিকাক ৮৪:৬]

(৬) মানুষকে যখন দুঃখ-কষ্ট স্পর্শ করে, তখন সে আমাকে ডাকতে শুরু করে, এরপর আমি যখন তাকে আমার পক্ষ থেকে নেয়ামত দান করি, তখন সে বলে, এটা তো আমি পূর্বের জানা মতেই প্রাপ্ত হয়েছি। অথচ এটা এক পরীক্ষা, কিন্তু তাদের অধিকাংশই বোঝে না। [সুরা যুমার ৩৯:৪৯]

(৭) তুমি যতই আগ্রহী হও না কেন, অধিকাংশ লোক-ই ঈমান আনবে না। [সুরা ইউসুফ ১২:১০৩]

(৮) অনেক নিদর্শন রয়েছে নভোমন্ডলে ও ভু-মন্ডলে যেগুলোর উপর দিয়ে তারা পথ অতিক্রম করে এবং তারা এসবের দিকে মনোনিবেশ করে না। [সুরা ইউসুফ ১২:১০৫]

অনেক মানুষ আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে, কিন্তু সাথে সাথে শিরকও করে। [সুরা ইউসুফ ১২:১০৬]

(৯) আপনার পালনকর্তা মানুষের প্রতি অনুগ্রহশীল, কিন্তু তাদের অধিকাংশই কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে না। [সুরা নাম’ল ২৭:৭৩]

(১০) আমি আকাশ পৃথিবী ও পর্বতমালার সামনে এই আমানত পেশ করেছিলাম, অতঃপর তারা একে বহন করতে অস্বীকার করল এবং এতে ভীত হল; কিন্তু মানুষ তা বহণ করল। নিশ্চয় সে জালেম-অজ্ঞ। [সুরা আহযাব ৩৩:৭২]

(১১) (হে নবী!) আপনি বলুন, আল্লাহই তোমাদেরকে জীবন দান করেন, অতঃপর মৃত্যু দেন, অতঃপর তোমাদেরকে কেয়ামতের দিন একত্রিত করবেন, যাতে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু অধিকাংশ মানুষ বোঝে না। [সুরা যাসিয়া ৪৫:২৬]

(১২) (হে নবী!) আর যদি আপনি পৃথিবীর অধিকাংশ লোকের কথা মেনে নেন, তবে তারা আপনাকে আল্লাহর পথ থেকে বিপথগামী করে দেবে। তারা শুধু অলীক কল্পনার অনুসরণ করে এবং সম্পূর্ণ অনুমান ভিত্তিক কথাবার্তা বলে থাকে। [সুরা আন’য়াম ৬:১১৬]

(১৩) মানুষ এরূপ যে, যখন তার পালনকর্তা তাকে পরীক্ষা করেন, অতঃপর সম্মান ও অনুগ্রহ দান করেন, তখন বলে, আমার পালনকর্তা আমাকে সম্মান দান করেছেন। [সুরা ফা’জর ৮৯:১৫]

এবং যখন তাকে পরীক্ষা করেন, অতঃপর রিযিক সংকুচিত করে দেন, তখন বলেঃ আমার পালনকর্তা আমাকে হেয় করেছেন। [সুরা ফা’জর ৮৯:১৬]

(১৪) মানুষকে যখন দুঃখ-কষ্ট স্পর্শ করে, তখন তারা তাদের পালনকর্তাকে আহবান করে তাঁরই অভিমুখী হয়ে। অতঃপর তিনি যখন তাদেরকে রহমতের স্বাদ আস্বাদন করান, তখন তাদের একদল তাদের পালনকর্তার সাথে শিরক করতে থাকে, [সুরা রূম ৩০:৩৩]

যাতে তারা অস্বীকার করে যা আমি তাদেরকে দিয়েছি। অতএব, মজা লুটে নাও, সত্বরই জানতে পারবে। [সুরা রূম ৩০:৩৪]

আমি কি তাদের কাছে এমন কোন দলীল নাযিল করেছি, যে তাদেরকে আমার শরীক করতে বলে? [সুরা রূম ৩০:৩৫]

আর যখন আমি মানুষকে রহমতের স্বাদ আস্বাদন করাই, তারা তাতে আনন্দিত হয় এবং তাদের কৃতকর্মের ফলে যদি তাদেরকে কোন দুদর্শা পায়, তবে তারা হতাশ হয়ে পড়ে। [সুরা রূম ৩০:৩৬]

(১৫) বলুনঃ যদি আমার পালনকর্তার রহমতের ভান্ডার তোমাদের হাতে থাকত, তবে ব্যয়িত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় অবশ্যই তা ধরে রাখতে। মানুষ তো অতিশয় কৃপণ। [সুরা বনী-ইসরাঈল ১৭:১০০]

(১৭) আল্লাহ জুলুম করেন না মানুষের উপর, বরং মানুষ নিজেই নিজের উপর জুলুম করে। [সুরা ইউনুস ১০:৪৪]

সমাপ্ত

আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক ইন শা আল্লাহ ’ লেখাটি শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে!

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ